Blog

Congue iure curabitur incididunt consequat

রাজনৈতিক ভবিষ্যত সেরা ১০০( ৬৫-তম)- লায়ন মিনা মালেক

কে এইচ এন রিসার্চ টিমঃ
 
“The ability to learn is the most important quality a leader can have.” — একটি বিখ্যাত মত হিসাবে আদৃত। নেতৃত্বের প্রশ্নে এমন দার্শনিক মত রেখেছিলেন পদ্মশ্রী ওয়ারিওর। শিক্ষা গ্রহণ করার মধ্য দিয়েই ফলত নেতৃত্বের বিকাশ হতে পারে। বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ ও রাজনীতি, এমন বাস্তবতায় দূরদৃষ্টি দাবী করে, লায়ন মিনা মালেক প্রতিটি দিনই শিখতে চান, জানতে চান এবং বাংলাদেশের জন্য তিনি কাজ করতে চান। 
মিনার নেতৃত্বের প্রধান সম্বল হল, তাঁর মধ্যে গণমুখী বিচরণ করার একটা সবিশেষ গুন রয়েছে। অতি অবশ্যই তাঁর সাংগঠনিক দক্ষতা ও দেশপ্রেম তাঁকে আলাদা করে দেয়।
মিনার চরিত্রে আবেগ রয়েছে। যে আবেগ মুলত নগরায়ন জীবনের সাথে থাকা নিম্নবিত্ত মানুষের জন্য প্রকটিত হয়। পল্লীর সড়কে নিরন্ন মানুষগুলোর শুকনো ঠোঁটের হাসির মধ্যে মিনা মালেকের আবেগ। আবেগটা তাঁর সত্তায় শক্তির মত কাজও করে। মিনা তাই মানুষের পাশে থেকে কাজ করাটাকেই জীবনের প্রতি মুহূর্তে উপভোগ করেন।  বিশ্ব বিখ্যাত সঞ্চালক অপরাহ উইনফ্রে একবার বলেছিলেন,  “Passion is energy. Feel the power that comes from focusing on what excites you.”
বরেণ্য নারী সাংবাদিক এনা উইন্টুর বলেছিলেন যে, “People respond well to those that are sure of what they want.” এমন উক্তির সাথেও মিনা মালেকের জীবন মিলে যায়, যেখানে তিনি খুব স্পষ্ট করে বলতে পারেন, মানুষের ভাগ্যান্নোয়নে আমি নিবেদিত সেবিকা হতে চাই, আর জনগোষ্ঠী তা বুঝতে পারার দৃষ্টান্তে উপস্থিতও থাকে।
লায়ন মিনা মালেক, রাজধানী ঢাকার রাজনীতিতে এক সু পরিচিত নাম। নারী হয়ে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুরণিত থাকা সত্তা। তিনি একজন শেখ হাসিনার হয়ে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত লড়ে যেতে চান। মিনা তাই গেল ত্রিশ বছরে রাজপথে থেকেছেন, নিজের স্বামীর নির্বাচনী এলাকা ধামরাই এ পড়ে থেকেছেন দিনের পর দিন। হ্যাঁ, তাঁর পতি এম এ মালেক সাবেক সাংসদ এবং ধামরাই উপজেলার আওয়ামী লীগের সভাপতিও বটে।
মিনা ১৯৬৪ সালে মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগরের ভাগ্যকুল ইউনিয়নের কামারগাও গ্রামে সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর দাদা আব্দুল গণি রহমতুল্লাহি পরহেজগার ও বিখ্যাত সুফী ব্যক্তি হিসাবে এলাকায় সুপরিচিত নাম।
মিনার বাবা ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা।যদিও মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট তিনি গ্রহণ করেন নাই। নাম, প্রয়াত ডাক্তার কাজী মজিবর রহমান। যিনি রাজবাড়ি জেলার বেলগাছিতে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে মোতাহার মোল্লার ক্যাম্পে থেকে সক্রিয় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন বলে প্রচলিত আছে।
মিনার মা আলহাজ্জ আমেনা বেগম। বাবার মত করে মিনাও একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা। মিনা ও মালেক দম্পত্তির চার সন্তান। এরমধ্যে জ্যেষ্ঠ সন্তান আল মামুন ডোনার ইংল্যান্ড থেকে এম বি এ করেছেন। যিনি এখন পুরোদস্তুর ব্যবসায়ী। মেজো সন্তান মৃদুল আল মামুন জয় ডাবল মাস্টার্স করে ব্যবসায়ী। একমাত্র আত্মজা জান্নাতুল ফেরদৌস ঊর্মি ভারত থেকে লেখাপড়া করে এখন ব্যবসা দেখছেন। কনিষ্ঠ পুত্র ওমর ফারুক ইংলিশ মিডিয়াম নিয়ে পড়ছে।
মিনার শ্রেষ্ঠ দিক হল, তিনি খুবই সাহসী, স্পষ্টবাদী ও লড়াকু স্বভাবের। তাই সামাজিকভাবে তিনি লায়ন্স ক্লাবের সাথে কাজ করে ‘লায়ন’ হলেও রাজনীতির ময়দানেও তিনি ফলত ‘লায়ন’ !
মিনা মালেক একজন ভাল মা হতে পেরেছেন, ভাল স্ত্রী, দক্ষ রাজনৈতিক সংগঠক এবং সমাজকর্মী তো বটেই। এক্ষেত্রে লায়ন মিনার সাথে মিলে যায় আরেকটি বৈশ্বিক পর্যায়ের দার্শনিক মত— “You have to look at your career and personal life at the big-picture level: it’s a marathon, not a sprint. Doing that helps me feel OK during the weeks when one part of my life overwhelms the other.”
শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ দাবী করছে, তাঁরা ২১০০ সাল পর্যন্ত জনশ্রেণির জন্য কি কি করতে চান তা ভেবে রেখেছেন। এমন কাল্পিক তথা স্বাপ্নিক কাঠামোগত প্রায়োগিক নির্দেশনাগুলোর বাস্তবায়নে মিনা মালেকের সক্রিয় অংশগ্রহণ যদি বৃহৎ আঙ্গিকে ধরা দেয়, বাংলাদেশের পক্ষের রাজনৈতিক তাঁবুগুলোর জয় হবে। কারণ, যতক্ষণ পর্যন্ত নিঃশ্বাস আছে, মিনা মালেক লড়বেন তাতে কোন সন্দেহ নেই। এ যেন মিনার কথাই উচ্চারিত হচ্ছে, যখন বিখ্যাত লেখক আয়ন রান্ড বলেছিলেন, “The question isn’t who is going to let me; it’s who is going to stop me?”
তবে, কথায় আছে, “Do not be afraid to make decisions. Do not be afraid to make mistakes.”রাজনৈতিক নেতৃত্বের অন্যতম যৌগিক পর্যায়ের গুনের মধ্যে রয়েছে সিদ্ধান্ত নেয়া এবং তা যেন ভুল না হয়। তবে সিদ্ধান্ত নেয়া এবং ভুল করার জন্য ভয় পেলে চলবে না। 
বাংলাদেশ আওয়ামী মহিলা লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা একজন মিনা মালেকের থাকলেও তাঁকে ওই অঙ্গ সংগঠনের উপরের সারির নেতা হতে থাকতে হচ্ছে। যদিও সংগঠটির শীর্ষ নেতা হওয়ার যাবতীয় গুন তাঁর মধ্যে আছে।
মিনা মালেকের কথা বলার আদল ও মিষ্টতা এবং যুক্তি প্রদানের সক্ষমতা— তাঁকে আগামীদিনের বাংলাদেশের রাজনৈতিক জমিনে জায়গা করে দেয়। গবেষণা দাবী করে, একজন নারী হয়েও তিনি যেকোন প্রতিষ্ঠিত পুরুষ রাজনীতিকের চেয়ে মেধা ও দক্ষতায় কম নন। তবে সাফল্য পেতে হলে, ব্যতিক্রমি পথচলায় নিজেকে সঁপে দিতে হবে। যেমনটি বলা যায় যে, “Success is an exception, so be exceptional.”
বাংলাদেশি দার্শনিক ঈশ্বরমিত্র বলছেন,পুরুষ ও নারীর মধ্যকার সমতাসূচক সমাজ বিনির্মাণ করার লড়াইটাই এক প্রকারের রাজনীতি, যা নারী পক্ষ থেকে সেভাবে উচ্চারিত হচ্ছে না। পুরুষ পক্ষের প্রয়োজন হয় না, যেহেতু পুরুষতন্ত্র সারাবিশ্বেই প্রতিষ্ঠিত— অথচ, সমতার মধ্য দিয়েই সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা পেলে  ঘুণে ধরা রাজনৈতিক দরজাটির ধ্বংস হত, মানুষ নতুন ঠিকনার সন্ধান পেয়ে একটার পর একটা রাজনৈতিক সুরাহা পেত।
মিনা মালেক বাংলাদেশের সমাজ ব্যবস্থায় সেই অদম্য নারীসত্তা, যিনি লিঙ্গভিত্তিক জীবনের জয়-পরাজয় নিয়ে একটি দিনেও চিন্তা করেন নি। নিজের মত করে এগিয়ে গিয়েছেন। এখানেই মিনা নিজেকে প্রমাণ করে বলতে পেরেছেন, মুক্তিযুদ্ধ শেষ হয়নি। এখনো লড়াই করতে হবে স্বাধীনতার বিরুদ্ধ শক্তির সাথে এবং কথিত পুরুষশ্রেণি, যারা আমাদের দেশের নারীকুলের জন্য আশীর্বাদ হয়ে সমাজের রাস্তায় দাঁড়িয়ে নেই। এমন বাস্তবতায় আমি বিপ্লবী এবং সংগ্রাম চালিয়েও যাব এক অতি সাধারণ পথিক হয়ে…
কে/কঝ/০৯৮৭/ 

5 Comments

  1. Alex TM
    April 1, 2015 at 20:27
    Reply

    Dolorum nascetur quibusdam bibendum nesciunt torquent vehicula, nostra? Nisl? Excepteur repellat provident, laboriosam! Nullam vel.

    • Alex TM
      April 1, 2015 at 20:28
      Reply

      Corporis quasi dicta voluptates, rerum vero eos quaerat, quo aliqua voluptates suspendisse quod tempus! Interdum.

      • Alex TM
        April 1, 2015 at 20:28
        Reply

        Egestas molestias erat impedit blanditiis quam, proident rutrum iste? Illum? Aenean proin. Nostrum pretium, commodi.

Leave a Reply

Close
Close